30 C
Dhaka
Friday, July 19, 2024

বিষধর রাসেলস ভাইপার মারবেন না যে কারণে

দেশের বিভিন্ন স্থানে দেখা মিলছে বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপার। জনমনে বাড়ছে আতঙ্ক। অনেকে রাসেলস ভাইপার ভেবে অন্য সাপও পিটিয়ে হত্যা করছেন। তবে রাসেলস ভাইপারসহ যেকোনো সাপই নানা উপকারে লাগে বলে জানিয়েছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

সম্প্রতি ফরিদপুর কোতোয়ালি এলাকায় রাসেলস ভাইপার সাপ মারতে পারলে প্রত্যেক সাপের জন্য ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ্ মো. ইশতিয়াক আরিফ। বিভিন্ন স্থানে হত্যা করা হচ্ছে রাসেলস ভাইপার। তবে রাসেলস ভাইপার সাপ মারা থেকে বিরত থাকার অনুরোধ করেছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়।

আরো পড়ুন  যে গ্রামের প্রতিটি বাড়ি যেন মদ তৈরির কারখানা

শনিবার (২২ জুন) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বন মন্ত্রণালয় বলেছে, সাপ মারা দণ্ডনীয় অপরাধ। রাসেলস ভাইপার বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইন ২০১২- এর ৬(১) ধারা অনুযায়ী সংরক্ষিত প্রাণী। তাই সাপ মারা থেকে বিরত থাকুন।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, রাসেলস ভাইপার ইঁদুর খেয়ে যেমন ফসল রক্ষা করে, তেমনি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এ ছাড়াও এই সাপের বিষ থেকে অনেক জীবন রক্ষাকারী ওষুধ তৈরি হয়।

ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাসেলস ভাইপার দক্ষ সাঁতারু হওয়ায় নদীর স্রোতে ও বন্যার পানিতে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। রাসেলস ভাইপারের উপস্থিতি উদ্বেগজনক হলেও মানুষের সঙ্গে এই সাপের মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কা কম। কারণ এই সাপ সাধারণত নীচুভূমির ঘাসবন, ঝোঁপজঙ্গল, উন্মুক্ত বন, কৃষি এলাকায় বাস করে এবং মানুষের বসতি এড়িয়ে চলে। সাপটি মেটে রঙের হওয়ায় মাটির সঙ্গে সহজে মিশে যেতে পারে। মানুষ খেয়াল না করে সাপের খুব কাছে গেলে সাপটি বিপদ দেখে ভয়ে আক্রমণ করে।

আরো পড়ুন  মেয়ের আনা লিচু খাওয়ার সময় গলায় বিচি আটকে বাবার মৃত্যু

এ অবস্থায় আতঙ্কিত না হয়ে সবাইকে সাবধানতা অবলম্বন করে চলাচলের পরামর্শ দিয়েছে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়। সেইসঙ্গে সাপে কামড়ালে করণীয় সম্পর্কেও দিকনির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এতে আরও জানানো হয়, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তনমন্ত্রী সাবের হোসেন চৌধুরীর নির্দেশনায় বাংলাদেশ বন বিভাগ পরিস্থিতি মোকাবিলায় বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করছে। স্থানীয়ভাবে সচেতনতামূলক কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য স্থানীয় বিভিন্ন কর্তৃপক্ষ ও সচেতন সমাজের প্রতি অনুরোধ জানানো হলো। পরিস্থিতি সক্রিয়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে এবং প্রয়োজন অনুযায়ী আপডেট দেয়া হবে।

আরো পড়ুন  নদীতে ভাসছিল কালো রঙের ট্রলি ব্যাগ, অতঃপর...

এদিকে রাসেলস ভাইপার সাপের উপদ্রবে সচেতনতার লক্ষ্যে সারা দেশের স্বাস্থ্যকর্মীদের নানা নির্দেশনা দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। সেইসঙ্গে বিভিন্ন হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পর্যাপ্ত পরিমাণে অ্যান্টিভেনম (সাপের বিষরোধক) মজুদ আছে বলেও জানান তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ