26 C
Dhaka
Wednesday, June 19, 2024

‘নগ্ন অবস্থায় নারীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের আপত্তিকর অঙ্গভঙ্গি’

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসানের চেহারাসাদৃশ্য একটি অশ্লীল ভিডিও সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে। শনিবার (১ জুন) ‘ইবির ত্রাস’ নামক একটি ফেসবুক আইডি থেকে ১ মিনিট ৩৩ সেকেন্ডের ভিডিওটি পোস্ট করা হয়। চাকরির প্রলোভনে নারীর সঙ্গে রেজিস্ট্রার অশ্লীল কর্মকাণ্ড করছেন বলে সেই পোস্টের ক্যাপশনে উল্লেখ করা হয়।

ভিডিওতে দেখা যায়, রেজিস্ট্রারের চেহারার সাদৃশ্য ব্যক্তি এক নারীর সঙ্গে নগ্ন অবস্থায় আপত্তিকর অঙ্গভঙ্গি করছেন। তবে ভিডিওর ওই নারীকে শনাক্ত করা যায়নি। অন্যদিকে, ভিডিওটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (এআই) মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন রেজিস্ট্রার।

আরো পড়ুন  স্ত্রীর মর্যাদা চান ছাত্রলীগ নেত্রী নেতা বলছেন—বিয়েই করিনি

ভিডিওটি প্রকাশের পর ক্যাম্পাসজুড়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়েছে। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন পোস্টের মাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিদের একের পর এক এমন কর্মকাণ্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মান চরমভাবে ক্ষুণ্ন করছে বলেও দাবি করেছে সচেতন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। আইটি বিশেষজ্ঞ ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর সহায়তায় ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করার দাবিও জানিয়েছেন তারা।

সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ও রেজিস্ট্রারের কণ্ঠসাদৃশ্য নিয়োগ বাণিজ্যসহ অনিয়ম-দুর্নীতি সংক্রান্ত অন্তত ২০টি অডিও রেকর্ড ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। বিভিন্ন ফেসবুক আইডি ও পেজ থেকে অডিওগুলো পোস্ট করা হয়। এগুলো এডিটেড (সম্পাদিত) দাবি করে থানায় জিডি করে কর্তৃপক্ষ। এসব বিষয়ে তদন্ত কমিটি হলেও এখনো কোনো সুরাহা হয়নি। যেসব ভুয়া ফেসবুক পেজ ও আইডি থেকে এসব অডিও-ভিডিও পোস্ট করা হয়, সেগুলো বন্ধে কর্তৃপক্ষকেও কোনো কার্যকর পদক্ষেপ নিতে দেখা যায়নি।

আরো পড়ুন  রাইসির মৃত্যুতে প্রভাব পড়বে কতটা?

ভিডিওর বিষয়ে রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান বলেন, ভিডিওটি এআই দিয়ে এডিট করা হয়েছে। আমাকে হেনস্তা করার জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে একটি পক্ষ এসব করেছে। ন্যাচারালি এর শাস্তি তারা পাবে। কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে আমি পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবো।

এ বিষয়ে ভিসি অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, বিষয়টি শুনেছি। বিভিন্ন ভুয়া ফেসবুক আইডি থেকে প্রশাসনের সকলের বিরুদ্ধে বিভিন্নরকম উল্টাপাল্টা পোস্ট করা হয়। এসব নেগেটিভ কাজকর্ম যারা করে তাদের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়। এসব উড়ো জিনিসের ওপর ভিত্তি করে কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যায় না। কারও কাছে যদি শক্তিশালী প্রমাণ থাকে তাহলে সরাসরি সেটা দিলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরো পড়ুন  আ.লীগের আনন্দ মিছিলে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৮
সর্বশেষ সংবাদ