27 C
Dhaka
Thursday, June 20, 2024

গাড়ি থামিয়ে ‘ডোপ টেস্ট’ ফরিদপুরে, ধরা পড়ছেন নেশাগ্রস্ত চালক!

সড়কপথে ফরিদপুরে ঢুকতেই যানবাহন চালকদের করা হচ্ছে ডোপ টেস্ট, পেশার মাপাসহ নানা পরীক্ষা। সড়ক দুর্ঘটনারোধে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু হয়েছে। প্রথমদিনেই তিন যানবাহনকে জরিমানা ও ডোপ টেস্টে পজিটিভ পাওয়ায় দুই চালকের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মহাসড়কগুলোতে একের পর এক ঘটছে দুর্ঘটনা। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যুর মিছিল। ফরিদপুরে সড়ক দুর্ঘটনারোধে প্রবেশমুখে ফিটনেসবিহীন যানবাহন চলাচল বন্ধর পাশাপাশি যানবাহন চালকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষার কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে।

গত ১৬ এপ্রিল ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফরিদপুর সদর উপজেলার কানাইপুর ইউনিয়নের তেঁতুলতলা দিকনগর এলাকায় বাস-পিকআপের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৫ জন নিহতের ঘটনায় এ অভিযানের ঘোষণা দেন জেলা প্রশাসক মো: কামরুল আহসান তালুকদার।

রোববার (১২ মে) দুপুরে ফরিদপুর-বরিশাল মহাসড়কের সদর উপজেলার মুন্সীবাজার এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন যানবাহনের ফিটনেস ও কাগজপত্র পরীক্ষা করা হয়। পাশাপাশি যানবাহন চালকদের ডোপ টেস্ট, ব্লাড পেশার ও ডায়াবেটিস পরীক্ষা করা হয়।

আরো পড়ুন  রাইসির মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক বৃহস্পতিবার

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মুজিবুল ইসলাম ও ফজলে রাব্বির নেতৃত্বে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এসময় বিআরটিএ’র কর্মকর্তারা যানবাহনের কাগজপত্র পরীক্ষা করেন ও সিভিল সার্জন অফিসের চিকিৎসকরা চালকদের বিভিন্ন শারীরিক পরীক্ষা করেন। এসময় পরিবহনের ফিটনেস ও কাগজপত্র সঠিক না থাকায় তিন পরিবহনকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া ডোপ টেস্ট করা হলে দুই ট্রাক চালক নেশাগ্রস্ত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় তাদের গ্রেফতার করে মামলা দিয়ে থানায় হস্তান্তর করা হয়।

ফরিদপুর জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মুজিবুল ইসলাম জানান, সড়ক দুর্ঘটনারোধে জেলা প্রশাসক স্যারের নির্দেশনায় এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। ফিটনেস ও কাগজপত্র সঠিক না থাকায় প্রথম দিনেই তিনটি যানবাহনকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া দুই জন ট্রাক চালককে ডোপ টেস্ট করা হলে পজিটিভ হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আরো পড়ুন  যেসব জেলায় দুপুর ১টার মধ্যে ঝড়ের আশঙ্কা

তিনি আরও জানান, ট্রাকচালক পলাশ মৃধা ও তৌফিক হাসানের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে কোতোয়ালি থানায়। তাদেরকে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক মো. কামরুল আহসান তালুকদার বলেন, ‘গত ১৬ এপ্রিল ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের ফরিদপুর সদর উপজেলার কানাইপুর ইউনিয়নের তেঁতুলতলা দিকনগর এলাকায় বাস-পিকআপের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৫ জন নিহতের ঘটনা ঘটে। ওই সময়ই এ ধরনের অভিযান পরিচালনা করা হবে বলে ঘোষনা দিয়েছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফরিদপুরে সড়ক দুর্ঘটনা বেড়েই চলেছে। গতকাল শনিবারও ভাঙ্গায় ৪ জন মারা গেছেন। দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে আনতেই এ অভিযান শুরু করা হয়েছে। ফিটনেসবিহীন কোনো গাড়ি ফরিদপুরে ঢুকতে পারবে না। এছাড়া কোনো চালক শারীরিকভাবে সুস্থ না থাকলে তারা গাড়ি চালাতে পারবে না।’

আরো পড়ুন  তনির প্রতিষ্ঠানের দেওয়া তথ্যে আরেক প্রতিষ্ঠান বন্ধ

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘শুধুমাত্র গাড়ির কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে না। চালক যদি অসুস্থ থাকে তাহলে তার কারণেও দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। চালক যদি সুস্থ না থাকে তাহলে সে গাড়ি নিরাপদে চালাতে পারবে না। একারণে সকল চালক, সুপারভাইজার ও হেলপারকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে। আমরা দেখতে পেয়েছি অনেক চালক উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে গাড়ি চালাচ্ছেন, আবার অনেকের ডোপ টেস্টে পজিটিভ পাওয়া গেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।’

জেলা প্রশাসক হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, ‘ফরিদপুরে যে গাড়িগুলো প্রবেশ করবে সেই সব গাড়ির চালকসহ স্টাফদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। আবার ফরিদপুর থেকে যে গাড়িগুলো ছেড়ে যাবে তাদেরও স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হবে। পর্যায়ক্রমে সব গাড়ির ফিটনেস ও চালকদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা নিশ্চিত করা হবে। এ অভিযান আজকে থেকে শুরু হয়েছে, অভিযান অব্যাহত থাকবে।’

সর্বশেষ সংবাদ