26 C
Dhaka
Wednesday, June 19, 2024

গ্রাম থেকে আসা নারীদের টার্গেট করে তারা

শহরের বাইরে থেকে আসা নারী-পুরুষদের টার্গেট করে তারা। যাত্রীদের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে বেশি কথা না বলে কম টাকায় রিকশায় ওঠায় চক্রটি। এ সময় অন্য সদস্যদের কৌশলে যাত্রী ওঠানোর খবর জানিয়ে দেয় তারা।

এরপর রিকশাচালক সদস্যের জন্য ওত পেতে বসে থাকে চক্রের অন্যরা। পরিকল্পনা অনুযায়ী যাত্রী নিয়ে নির্ধারিত গন্তব্যে যাওয়া পথে রাস্তার মধ্যে টাকায় মোড়ানো কিছু কুড়িয়ে পায় রিকশাচালক। মূলত এটা চক্রের যেকোনো সদস্য আগেই ফেলে রাখে। কোন জায়গায় ফেলা হবে তা আগে থেকেই তারা জানে।

এরপর নির্ধারিত স্থানের যাওয়ার পর রিকশাচালক শুরু করে অভিনয়। হঠাৎ রিকশা থামিয়ে রাস্তা থেকে টাকায় মোড়ানো ওই বস্তুটি তুলে যাত্রীকে দেখায়। ওখানে টাকা, সোনার প্রলেপের একটি বস্তু এবং একটি চিঠি থাকে। চিঠিতে লেখা থাকে কোন দোকানে এই জিনিসটি দিয়ে কী তৈরি করা হবে। এরপর রিকশাচালক যাত্রীকে কম দামে এ সোনার গহনা কেনার অফার করে।

আরো পড়ুন  পাঁচ ইলেক্ট্রোলাইট ড্রিংকস কোম্পানির মালিকের বিরুদ্ধে মামলা

এক্ষেত্রে নারী যাত্রীদের সহজে বোকা বানাতে পারে তারা। যখন যাত্রীর কাছে স্বর্ণসদৃশ ওই বস্তু বিক্রির দেনদরবার চলে তখন চক্রের অন্য সদস্যরা এসে রিকশাচালক সদস্যকে সাহায্য করে। যাত্রীকে বোঝায় এটি খাঁটি সোনা। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে এই চক্র বেশ তৎপর।

সম্প্রতি এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে বরিশাল নগরীর নথুল্লাবাদ এলাকায়। এখানে এসে কোনো নারী কিংবা সাধারণ যাত্রী যদি এই প্রতারকচক্রের রিকশায় উঠেন তাহলে তাদের পরিকল্পিতভাবে বোকা বানানো হয়।

আরো পড়ুন  প্রধানমন্ত্রীর ঈদ বোনাস নিয়ে ফেসবুকে প্রতারণার ফাঁদ

তবে বরিশাল মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশের এক অভিযানে এমন প্রতারকচক্রের এক সদস্যকে হাতেনাতে ধরা হয়েছে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে ডিবি। এ সময় এক নারীকে ফাঁসানোর চেষ্টাকালে প্রতারকচক্রের রিকশাচালক সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়।

ডিবি পুলিশ জানিয়েছে, এ প্রতারকচক্রের প্রধান টার্গেট থাকে নারী। তারা কৌশলে গ্রাম থেকে আসা সহজ-সরল নারীদের ফাঁদে ফেলে। অনেক সময় এসব নারীর সঙ্গে টাকা না থাকলে রুপার চেইনসহ অন্য জিনিসপত্র দিয়ে রিকশাচালকের কাছ থেকে স্বর্ণসদৃশ্য এসব বস্তু কিনে নেয়।

আরো পড়ুন  জীবনে অনেক খুনের তদন্ত করেছি, এমন ঠান্ডা মাথার খুন দেখিনি : হারুন

শুধু তাই নয় এরা অন্যভাবেও মানুষকে ফাঁদে ফেলে। অনেক সময় স্ত্রী-সন্তান অসুস্থ বা খুব বিপদে পড়ে বাড়ি থেকে সোনার গহনা বিক্রির জন্য নিয়ে আসা হয়েছে বলেও যাত্রীদের জানায়। এরপর কম টাকায় তা বিক্রি করতে চায়। বাজার থেকে পিতলের চামচ কেটে সিরিজ কাগজ দিয়ে ঘষে তা চকচকে করা হয়। এতে সাধারণ মানুষ সহজেই তা স্বর্ণ বলে ধরে নেয়।

সর্বশেষ সংবাদ