29 C
Dhaka
Sunday, June 16, 2024

স্ত্রীর মর্যাদা চান ছাত্রলীগ নেত্রী নেতা বলছেন—বিয়েই করিনি

সামাজিকভাবে বিয়ের স্বীকৃতি ও স্ত্রীর মর্যাদা দাবি করতে গিয়ে ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির এক সহসভাপতির মারধরের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন এক তরুণী। তার ভাষ্য, ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী সংগঠনের ওই নেতা তাকে বিয়ে করেছেন এবং জোর করে গর্ভপাত ঘটিয়েছেন। ফুয়াদ হোসেন শাহাদাত নামের ওই নেতার বিরুদ্ধে যিনি অভিযোগ করেছেন, তিনিও একই সংগঠনের ইডেন কলেজ শাখার নেত্রী। তবে বন্ধুত্বের বাইরে অন্য কোনো সম্পর্ক নেই দাবি করে শাহাদাত বলছেন, তার বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগই ভিত্তিহীন। বন্ধুত্বের বাইরে তাদের আর কোনো সম্পর্ক ছিল না; বরং অনেক দিন ধরে তাকেই মানহানিসহ নানা ধরনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

জানা গেছে, শাহাদাতের প্রতারণা ও নির্যাতনের অভিযোগ তুলে এর প্রতিকার চেয়ে গত ২৪ মে ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে লিখিত অভিযোগ করেন ওই তরুণী। এতে বলা হয়, ফুয়াদ হোসেন শাহাদাতের সঙ্গে তার ১০ বছরের সম্পর্ক। এই দীর্ঘ সময়ে তার সঙ্গে ঘটে যাওয়া নানা ধরনের অন্যায়ের বিষয়ে তিনি গত ১৮ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে অবহিত করেন। ওবায়দুল কাদের বিষয়টি মীমাংসার জন্য ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে দায়িত্ব দেন। সে অনুযায়ী গত ৫ এপ্রিল মীমাংসার সময় নির্ধারণ করা হয়।

কিন্তু এর দুদিন আগে পারিবারিকভাবে সমাধানের কথা বলে শাহাদাত তাকে বাসায় ডেকে নিয়ে যান। ভুক্তভোগী তরুণীর দাবি, বাসায় যাওয়ার পর সমাধানের পরিবর্তে শাহাদাত তাকে এলোপাতাড়ি লাথি মারে এবং গুরুতর জখম করে। নিরুপায় হয়ে তিনি ৯৯৯-এ কল করেন। এরপর পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। সেখান থেকে বেরিয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফকে বিষয়টি জানান। পরে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা নেন। এ ঘটনায় তিনি মানসিক ও শারীরিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েন।

অভিযোগপত্রে ওই তরুণী বলেন, ‘আমি সামাজিকভাবে স্বীকৃতি চাওয়ার পর থেকেই শাহাদাত আমার পরিবারের সবার নামে মামলা দেওয়া এবং বিভিন্নভাবে ক্ষতি করার হুমকি দেয়। এমনকি আমাকে প্রতিনিয়ত প্রাণনাশের হুমকি প্রদান ও আমার মান-সম্মান যাতে না থাকে, সেই ব্যবস্থা করার হুমকি দেয়। তাই তার এসব কার্যকলাপে আমি আতঙ্কিত। ২০১৬ সালে মুসলিম আইন অনুসারে আমাদের বিয়ে হয় এবং সব ডকুমেন্ট নিজের কাছে আটকে রাখে। পরে তা অস্বীকার করে।’

আরো পড়ুন  মেলেনি আনারের লাশ আসন নিয়ে দৌড়ঝাঁপ

বিষয়টি নিয়ে গত ২৬ মে হাজারীবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছেন ভুক্তভোগী। এতে বলা হয়, ‘ফুয়াদ হোসেন শাহাদাত আমার স্বামী। তার সঙ্গে আমার বিয়ে হয় ২০১৬ সালে। পারিবারিক কলহের পর সে গত ১৮ মে আমাকে হোয়াটসঅ্যাপে কল করে মেরে ফেলার হুমকি দেয় এবং মিথ্যা মামলা দেবে বলে হুমকি প্রদান করেছে।’

এর আগে গত বছরের ৩ নভেম্বর একই থানায় ওই তরুণীর বিরুদ্ধে ফুয়াদ হোসেন শাহাদাত একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন। এতে বলা হয়, ‘ওই নারীর সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে এবং সেই সূত্র ধরেই বিভিন্ন সময় দেখা-সাক্ষাৎ হয় এবং দুজনে বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যান। বন্ধুত্বের সুবাদে সে তার মোবাইল ফোনে ছবি ধারণ করে এবং পরে সে তার বাসা ভাড়াসহ বিভিন্ন খরচ প্রদানে আমাকে বাধ্য করে। সে বিভিন্নভাবে আমার কাছ থেকে টাকা-পয়সা চেয়ে হুমকি দেয় যে, যদি আমি তাকে টাকা প্রদান না করি, তাহলে সে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আমার ছবি বিভিন্নভাবে পোস্ট করে আমার সম্মানহানি করবে। সে যে কোনোভাবে তার দাবি না মানলে আমাকে আরও বিভিন্নভাবে ক্ষতি করার প্রতিনিয়ত হুমকি প্রদান করে আসছে।’

চলতি বছরের এপ্রিলে শাহবাগ থানায় করা আরেকটি জিডিতে তিনি উল্লেখ করেন, গত ৩ এপ্রিল ওই নারী হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে কল দিয়ে শাহাদাতকে বলেন, তার (নারী) কথা যদি শাহাদাত না শোনেন এবং কথামতো যদি কাজ না করেন, তাহলে তিনি তার কণ্ঠ নকল করে এআই বা অ্যাপের মাধ্যমে অপ্রীতিকর মন্তব্য ছোট ছোট অডিও ক্লিপ বানিয়ে সবার কাছে পাঠাবেন। কণ্ঠ ক্লোন করে এসব ক্লিপ বানানো হবে গুরুত্বপূর্ণ মানুষকে নিয়ে, যাতে প্রয়োগ করা হবে খারাপ ও অশ্লীল শব্দ।’

দুজনের অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের সূত্র ধরে কালবেলার অনুসন্ধানে মোবাইল ফোনের বেশ কিছু স্ক্রিনশট এবং কল রেকর্ডের অডিও পাওয়া গেছে। ফুয়াদ হোসেন শাহাদাতের একটি স্ক্রিনশট বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ওই নারী হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠিয়ে বলছেন, ‘আমি আর কাউকে চাইনি। তোমাকে চাইছি। প্লিজ। আমার উপর রহম করো। তুমি বলেছিলে যে, আমি দুইটা বিয়েতে যেন রাজি হই, আমি এখন রাজি। তুমি আমাকে বিয়ে করো। আমি সব করবো।’

আরো পড়ুন  আ.লীগের আনন্দ মিছিলে দু’পক্ষের সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ১৮

এই স্ক্রিনশটে শাহাদাতের বার্তা ডিলিট থাকায় তার কোনো কথা পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া শাহাদাত গত ৩ এপ্রিল ৯৯৯-এ কল দিয়ে ওই নারীর হাত থেকে বাঁচতে সহযোগিতা চেয়েছেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৯৯৯ থেকে তার কাছে আসা একটি বার্তার স্ক্রিনশট পাওয়া গেছে।

অন্যদিকে একই দিনে ওই নারীর মোবাইলেও ৯৯৯ থেকে একই ধরনের বার্তা এসেছে বলে প্রমাণ পাওয়া যায়। এ ছাড়া তার মোবাইলের একটি স্ক্রিনশটে দেখা যায়, শাহাদাত তাকে ২০১৯ সালে হোয়াটসঅ্যাপে লিখেছেন, ‘প্লিজ, তুমি যা বলবা আমি শুনবো। আমি তো বিয়ে করছি তোমাকে, জাস্ট বিশ্বাস রেখো। অ্যাবোরশনটা করে ফেলো, প্লিজ। আমার স্বপ্নটা খাইও না প্লিজ। আমি তোমাকে ভালোবাসি। আমি কাউন্সিলের পর অফিশিয়ালি বিয়ে করবো প্রোগ্রাম করে। জাস্ট আমাকে টাইম দাও। তোমার কাবিনের টাকা আমি তোমার অ্যাকাউন্টে দিয়ে রাখবো, তাহলে তো বিশ্বাস করবা, আমি তোমাকে ঠকাবো না।’

এর জবাবে ওই তরুণীর ম্যাসেজ ছিল, ‘আমাকে সম্মানটা দাও।’

ওই দুজনের ফোনালাপের দুটি অডিও কালবেলার কাছে রয়েছে। এর একটিতে শাহাদাতের কণ্ঠে শোনা যায়, ‘ডিভোর্স দিয়ে তোকে রাস্তায় রাস্তায় ঘোরানো উচিত ছিল। আমার সাথে একটা মেয়ের ছবি দেখছোস, আর আমাকে পাগল করে ফেলছোস। আমি শুধু রাস্তায় রাস্তায় হাঁটতাছি। তুই কই আছোস, সেটা আমাকে বল, আমি ওনে আসমু।’ তখন ওই নারী বলেন, ‘তুই আগে স্ট্যাটাস (স্বীকৃতি) দে, তারপর আমি বলবো, কই আছি।’

আরেকটি ফোনালাপে শাহাদাত বলেন, ‘কই আসব, বল? তুই যেইখানে আছিস সেইখানেই আসব। কিছু করব না, তোর সঙ্গে আমি দেখা করব। যখন কাউন্সিল হয় নাই তখনই তোরে মাইরা ফালানো দরকার ছিল। তুই বল, কই আছোস? জীবনে তোরে কখনো রাস্তার মধ্যে পাইলে দেখবি তোরে ধ্রাম কইরা উড়াইয়া ফালাইছি।’

আরো পড়ুন  কবর দেওয়ার সময় কেঁদে উঠল ‘মৃত’ নবজাতক

এ সময় ওই নারী বলেন, ‘মানুষকে ইউজ করে জীবন নষ্ট করার পর প্রতিবাদ করলে স্বার্থে আঘাত লাগে, তাই না?’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযোগকারী ওই তরুণী কালবেলাকে বলেন, ‘অভিযোগপত্র ও জিডিতে যা লিখেছি তার সবই সত্য। শাহাদাতের সঙ্গে আমার বিয়ে হয়েছে ২০১৬ সালে। বিয়েতে তার দুজন বন্ধু সাক্ষী ছিল, আমি তাদের ভালোভাবে চিনি না, যোগাযোগও নেই। বিয়ের সব কাগজপত্র শাহাদাতের কাছে। এজন্য আমি কোনো প্রমাণ দেখাতে পারছি না। তার জোরাজুরিতেই আমার গর্ভপাত করতে হয়েছে।’

অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা ফুয়াদ হোসেন শাহাদাত কালবেলাকে বলেন, ‘আমি যে তাকে বিয়ে করেছি, সে বিষয়ে কোনো প্রমাণ সে কখনোই দেখাতে পারবে না। সে মেডিকেল রিপোর্টসহ যত ডকুমেন্ট সামনে এনেছে তার সবই নকল ও বানানো। কবে, কোন থানায়, কার সাক্ষীতে এবং কোন কাজির মাধ্যমে বিয়ে হয়েছে, সেটিই সে বলতে পারবে না।’

শাহাদাত আরও বলেন, ‘অভিযোগে সে বলেছে, আমি নাকি তাকে মারধর করেছি। আমি ওইদিন বাসায়ই ছিলাম না। ৯৯৯-এ কল দিয়ে তাকে বাসা থেকে বের করেছি। এখন সে বলছে, সে নাকি ৯৯৯-এ কল দিয়েছে। এর আগেও গত বছরের নভেম্বরে বাসায় গিয়ে সে ভাঙচুর করেছে এবং আমার মাকেও হুমকি দিয়েছে। সে আমার ফ্যামিলিটিকে নাই করে ফেলছে। টাকা-পয়সা থেকে শুরু করে আইফোন এমন কিছু নাই যে, সে আমার কাছ থেকে নেয়নি।’

সার্বিক বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ ওয়ালী আসিফ ইনান কালবেলাকে বলেন, ‘গত ২৪ মে এ বিষয়ে আমরা একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘূর্ণিঝড় রিমালের কারণে সাংগঠনিক ব্যস্ততা থাকায় এ নিয়ে কাজ করতে পারিনি। শিগগির আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখব এবং তদন্তসাপেক্ষে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দাম হোসেনের মোবাইল ফোনে কল করে তাকে পাওয়া যায়নি।

সর্বশেষ সংবাদ